Back
Home » সংবাদ
গত ‌সাত মাসে রেকর্ড বাড়ল মুদ্রাস্ফীতি, উদ্বেগজনক বলছেন অর্থনীতিবিদরা
Oneindia | 12th Jun, 2019 06:49 PM
  • করুণ অবস্থা অর্থনীতির

    সেই নিরিখেই হয়তো বিশ্বব্যাঙ্কে ভারতের আর্থিক বিকাশের উন্নয়নকে সাধুবাদ জানিয়েছিল। কিন্তু বাস্তবে দেখা গিয়েছিল করুণ অবস্থায় রয়েছে দেশের অর্থনীতি। সেটা সামাল দিতেই মুক্ত হস্ত হয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। তারপরেও সামলানো গেল না। শোনা গিয়েছিল, গত তিন মাসে দেশের লোকসভা ভোটে যে পরিমাণ অর্থ খরচ হয়েছে তা বিশ্বের তাবড় উন্নত দেশে হয় না। এক কথায় ভোটে অর্থব্যায়ে ভারত শীর্ষে অনায়াসেই পৌঁছতে পারে।


  • যার পরিণতি মুদ্রাস্ফীতি

    যার পরিণতি এই মূদ্রাস্ফীতি। সাদা ভাষায় বলতে গেলে গত সাত মাসে দেশে জিনিসের দাম বেড়েছে দ্রুত হারে। যা সামাল দেওয়া বা নিয়ন্ত্রণ করার মতো পরিস্থিতি তৈরি করেনি সরকার। মোদী ক্ষমতায় এসেই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, দেশে এবার দু'‌রকমের জাতি থাকবে এক, যাঁরা গরিবি থেকে বেরিয়ে আসতে চান তাঁরা আর দুই যাঁরা দেশকে গরিবি থেকে বের করতে চান তাঁরা। এই দুইয়ের মাঝে মধ্য বিত্ত বা উচ্চ মধ্যবিত্ত শ্রেণির কোনও অবস্থান ছিল না।


  • অবস্থা উদ্বেগজনক

    অথচ এই দুই শ্রেণিই দেশের অর্থনীতিকে সুসংগঠিত করে ধরে রাখার মূল স্তম্ভ। এখনও বাজেট অধিবেশ শুরু হয়নি। তার আগেই দেশের অর্থনীতির এই হাঁড়ির হাল দশা অত্যন্ত উদ্বেগ জনক বলে মনে করছেন রাজনীতিকরা।




‌দেশের অর্থনীতির উন্নয়নে মোদীর সঙ্গে হাত মিলিয়ে মুক্ত হস্ত হয়েছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। এক ধাক্কায় রেকর্ড কমিয়েছে রেপোরেট। তারপরেই সেই তলানিতেই এসে ঠেকল অর্থনৈতিক অবস্থা। নরেন্দ্র মোদী দ্বিতীয়বার প্রধানমন্ত্রী পদে বসার পর দেশের আর্থিক বিকাশের যে তথ্য উঠে এসেছে তা যথেষ্ট উদ্বেগজনক। মূদ্রাস্ফিতি গত সাত মাসে রেকর্ড বৃদ্ধি হয়েছে। মে মাসে মূদ্রাস্ফিতি বেড়েছে ৩.‌০৫ শতাংশ। গত সাত মাসে যা রেকর্ড। কনজিউমার প্রাইস ইনডেক্স বলছে ২০১৮ অক্টোবর মাসে দেখা গিয়েছিল এই পরিমাণ মূদ্রাস্ফিতি। তারপরে বাজার স্থিতিশীলই ছিল।