Back
Home » সংবাদ
তৃণমূলের দখলেই হুগলির পঞ্চায়েত, মুকুল রায়কে ৪৮ ঘণ্টার চ্যালেঞ্জ ছুঁড়লেন অভিষেক
Oneindia | 12th Jun, 2019 07:32 PM
  • চাঁপাডাঙা তৃণমূলেরই দখলে

    মঙ্গলবার মুকুল রায় ঘোষণা করেন, হুগলির আরামবাগের দুটি গ্রাম পঞ্চায়েত তৃণমূল কংগ্রেসের হাতছাড়া হয়েছে। তালপুকুর ও চাঁপাডাঙা গ্রাম পঞ্চায়েতের সমস্ত সদস্য যোগ দিয়েছেন বিজেপিতে। এই খবরকে মিথ্যা পরিবেশন বলে এদিন ব্যাখ্যা করলেন অভিষেক। তিনি বলেন, চাঁপাডাঙা পঞ্চায়েত তৃণমূলের দখলেই রয়েছে।


  • যে জেলায় উত্থান, সেখানেই ভাঙন

    লোকসভা ভোটের পর প্রতিদিনই নিয়ম করে তৃণমূলে ভাঙন চলছে। একজন না একজন যোগ দিচ্ছেন বিজেপিতে। বহরে বাড়ছে বিজেপি। গ্রাম পঞ্চায়েত ও পুরসভাও দখলে নিচ্ছে তারা। এই প্রবণতার ফলে স্বভাবতই চাপে তৃণমূল কংগ্রেস। যে জেলা থেকে উত্থান, সেই হুগলি জেলা থেকেই ভেঙে পড়ছে তৃণমূলের সংগঠন। এবার চাঁপাডাঙা নিয়ে বিজেপি তথা মুকুল রায়কে কাউন্টার করল বিজেপি।


  • মুকুল রায়ের মিথ্যা ভাষণের প্রতিবাদ

    অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন মুকুল রায়ের মিথ্যা ভাষণের প্রতিবাদ করে বলেন, যাঁর মাথার উপর সিবিআইয়ের খাঁড়া ঝুলছে, যিনি নিজের পিঠ বাঁচাতে দল পরিবর্তন করেছেন, তিনি নিজের নম্বর বাড়ানোর জন্য মিথ্যা পরিবেশন করবে, এটাই স্বাভাবিক।


  • সিঙ্গুর আন্দোলন ভুল তো, পদত্যাগ নয় কেন

    অভিষেক বলেন, উনি নাকি দাবি করেছেন যে সিঙ্গুর আন্দোলন মারাত্মক ভুল ছিল। আমি বলি, যদি সিঙ্গুর আন্দোলন ভুল বলে মনে হয়, তখন কেন দল ছেড়ে বেরিয়ে এলেন না? মুকুলের উদ্দেশ্যে এ প্রশ্ন ছুঁড়ে অভিষেকের দাবি, তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে য়োগ দিয়েছে বলে যাঁদের নাম বলা হচ্ছে, তাঁরা তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে যাননি। এক- দু'জন গেলেও যেতে পারে, কিন্তু পঞ্চায়েত আমাদেরই দখলে।


  • ৪৮ ঘণ্টার চ্যালেঞ্জ অভিষেকের

    অভিষেক বলেন, আপনি বলছেন ১৭ জন বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। তাহলে সাংবাদিক সম্মেলনে কেন মাত্র ৪ জন? এরপর মুকুল রায়কে অভিষেকের চ্যালেঞ্জ, যাঁরা আপনার হাত ধরে বিজেপিতে যোগ দিয়েছে, আমি বললাম তাঁরা ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তৃণমূলে ফিরে আসবেন।




মুকুল রায়কে মিথ্যাবাদী বললেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর এক সময়ের রাজনৈতিক গুরু এখন দলবদলে বিজেপিতে। লোকসভা ভোটের পর দলে নম্বর বাড়াতে তিনি মিথ্যা তথ্য পরিবেশন করছেন মুকুল রায়। চাঁপাডাঙা পঞ্চায়েত বিজেপি দখল করেছে, এটা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও মিথ্যা খবর, দাবি করলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।